1. : admin :
  2. adorne@g.makeup.blue : aliwearing26 :
  3. jasminehenderson954@yahoo.com : celsaallardyce :
  4. clint@g.1000welectricscooter.com : jannafulmer321 :
  5. matodesucare2@web.de : karladane059 :
  6. admin@kalernatunsangbad.com : Khairul Islam :
  7. alec@c.razore100.fans : ricardospurlock :
  8. scipidal@sengined.com : scipidal :
  9. ferdinandwarnes@hidebox.org : shanebroome34 :
  10. oralia@b.thailandmovers.com : shannancostas :
  11. malinde@b.roofvent.xyz : stephanieiyt :
  12. carr@g.1000welectricscooter.com : trishafairweathe :
  13. rhi90vhoxun@wuuvo.com : user_tforzh :
  14. lyssa@g.makeup.blue : walterburgoyne :
  15. wynerose@sengined.com : wynerose :
বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১০:০৫ পূর্বাহ্ন

মাদকে সয়লাব হোসেনপুর ধ্বংসের মুখে যুবসমাজ

  • প্রকাশ কাল বুধবার, ১৬ নভেম্বর, ২০২২
  • ৯৪ বার পড়েছে

স্টাফ রিপোটারঃ কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে বানের পানির মতো ভিবিন্ন এলাকাতে থেকে আসছে বিভিন্ন ধরনের মাদক। মাদকে সয়লাব হয়ে গেছে গোটা উপজেলা । পুলিশের বিভিন্ন সময়ে অভিযান চালিয়ে মাদক ব্যাবসায়ীদের গ্রেফতার করলেও মাদক ব্যাবসা থেমে নেই।এতে ধ্বংস হচ্ছে যুবসমাজ।

হোসেনপুর উপজেলা তিন সীমান্ত বেষ্টিত হওয়ায় এ উপজেলার বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে অবাধে আসছে মদ, গাঁজা, হেরোইন, ইয়াবাসহ বিভিন্ন ধরনের মাদক। ফলে সংক্রামক ব্যাধির মতো মাদকের নেশা ছড়িয়ে পড়েছে উপজেলার সর্বত্রই। প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ টাকার মাদক কেনা বেচা হয়। মাদক ব্যবসা এমন মাত্রায় পৌঁছেছে যে, জায়গায় বসে অর্ডার করলেই বাড়িতে চলে আসে মাদক। মাদকের এমন ভয়াবহ বিস্তারে হোসেনপুর যেন এখন মাদকের স্বর্গরাজ্য । স্কুল-কলেজের ছাত্র, যুবক, ব্যবসায়ীরাও এ নেশায় আসক্ত হয়ে পড়েছে। নেশার সাগরে হাবুডুবু খাচ্ছে তারা। এতে উদ্বিগ্ন হয়ে পরেছে অভিভাবকসহ সচেতন মহল।

অভিযোগ উঠছে মাদকের ব্যবসার সঙ্গে জড়িত সেল্টারদাতা রাজনৈতিক দলের এক নেতার ছেলে। সে প্রতিটি সিন্ডিকেটে মাধ্যমে ইউনিয়ন পর্যন্ত বিস্তার তৈরি করে রেখেছেন ও স্থানীয় ছেলা ফেলারা সেল্টারে জড়িত থাকায় মানুষ দেখেও না দেখার বান করে । আর এইজন্যই এলাকার সাধারন মানুষ মাদক সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে ভয়ে মুখ খুলতেও সাহস পায়না।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, উপজেলার ৬ টি ইউনিয়নের প্রায় অর্ধশত স্পটে মাদকের রমরমা ব্যবসা চলছে। মাদকের শক্তিশালী সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণ করছে এই ব্যাবসা। সন্ধ্যার পর এসব স্পটে বসে মাদকের ভাসমান হাট। হোসেনপুরে চরজামাইল সরকারী ইস্কু মোড়, খুরশিদ মহল ব্রীজ মোড়, ব্রীজের নিচে, আশতিয়া বাজার, ইস্কুল মাঠ, ব্রীজের পাড় হারেন্জা পুল, ধলাপাতা পুল, হোসেনপুর গরুহাটা, হাসঁপাতালের পূর্ব সাইড, হোসেনপুর কুড়িঘার্ট বধ্যভূমির নিচে, আমান সরকার বাজার, দ্বীপেশ্বর চায়না রোড পূর্ব সড়ক, ও জিনারী ইউনিয়নের তেতুলিয়া সরকারী স্কুল মাঠ, হলিমা শাকিল ফকির বাড়ী, হলিমা মাজার, হলিম বীল পাড় পুল, গাবরগাও হলিমা রোড, টেকাপাড়া পুল , মহেষকুড়া মাদ্রসা রোড, সিদলার চরবন বাজার, বাঘমারা বীলপাড়, আতখাঁপাড়ার শাজাহান হোসেনপুরের এক অংশের ডিলার ও জিনারী ইউনিয়নের উত্তর চরহটর আলগীর এনায়েত উল্লাহ দু্লালের পুত্র সামিউল্লাহ সানমুন সহযোগী ডিলার হিসাবে কাজ করেন, আর ভিবিন্ন রটের ০১৭৭৫ ১৩ ৮২ ০৮ বিকাশ নম্বরে আসে টাকা । উপজেলার প্রায় অধিকাংশ এলাকাতেই মাদকের ব্যাবসা চলছে।

জানা যায়,ভারত থেকে আনা মাদক প্রথমে হালুয়াঘাট পাচার করার পর বাংলাদেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে পাচার করতে জেলাভিক্তিক প্রায় দুইশতাদিক চোরাকারবারী সক্রিয় ভাবে
কাজ করছে। মাদক চোরা কারবারিরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কিছু অসাধু সদস্য ও কিছু রাজনৈতিক ব্যক্তিকে ম্যানেজ করে সর্বনাশা এই মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সূত্রে নিশ্চিত করেছে।

মাদক ব্যবসায়ীরা হোসেনপুরে উপজেলার কয়েকটি রুটে ভাগ করে নিরাপদে তাদের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। এগুলো হলো ভিবিন্ন বাজারে ও চুরি হওয়া নম্বরবিহীন কয়েকটি হোন্ডা, কেশেরা মোড় দিয়ে দক্ষিণ রোড দিয়ে প্যারাভাঙ্গা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠ সামনে রোড দিয়ে গোবিন্দপুর পুরাতন পুল এখানে কাজ করেন একটি চক্র, কটিয়াদির বাইপাস দিয়ে আশতিয়া বাজার পর্যন্ত একটি চক্র ফেনসিডিল আনার কাজ করেন, খুরশিদ মহল ব্রীজ ব্যবহার করেন একটি চক্র, জিনারীর মহেষকুড়া মাদ্রাসা, হলিমা মাজার, মরাগাংঙ দিয়ে আসে মদ। এছাড়াও ছোট বড় চালানে প্রায় সব রুট দিয়ে ইয়াবা আসে।

পুলিশ অভিযান চালিয়ে গাঁজা, হেরোইন, মদ ও ইয়াবাসহ মাদককারবারিকে আটক করলেও বড় বড় মাদক ব্যবসায়ীরা থাকছে ধরা ছোঁয়ার বাইরে।

হোসেনপুর থানা রোড আড়াইবাড়িয়ার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েক ব্যাক্তি বলেন আমাদের বাড়ির পাশেই দিনে রাতে মাদক কেনা বেচা ও মাদক সেবনের ধুম পড়ে যায়। মাদকের গন্ধে বাড়িতে থাকাই দায় হয়ে যায়। কিন্তুু মাদকসেবীদের ভয়ে নীরব হয়ে আছি। নাম প্রকাশের ভয়ে পুলিশকেও জানাতে পারছিনা।

এ বিষয়ে হোসেপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাসুদ আলম বলেন,মাদকের বিষয়ে আমাদের জিরো টলারেন্স নীতি অব্যাহত আছে। এবিষয়ে কোন আপোষ করবনা। মাদক ব্যাবসায় যারাই জড়িত থাকুক কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না। মাদক নির্মূলে সবার সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।

কিশোরগঞ্জ পূজা উদযাপন কমিটির সাধারন সম্পাদক ও হোসেনপুর প্রেসক্লাব সভাপতি প্রদীপ কুমার সরকার বলেন, মাদক নিমূলে সচেতনতা বৃদ্ধিতে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধি,গনমাধ্যম কর্মী ও স্হানীয় সুধীমহল নিয়ে কর্মশালা করতে হবে। অভিবাবকরা সচেতন
হয়ে সন্তানরা কোথায় চলাফেরা করেন, কার সাথে কোথায় আড্ডা দেন সন্ধ্য্যা হলেই ঘরে ফিরলো কিনা সব বিষয়ে সঠিক ভাবে তদারকি করা হলে উঠতি বয়সের সন্তানরা মাদকে আসক্ত হওয়ার সম্ভবনা কম থাকে। সমস্যা মোকাবেলা করে আমাদের সীমিত সামথের্র মধ্যে সন্তানদের মাদক মুক্ত রাখা সম্ভব।

শেয়ার করুন

অন্যান্য সংবাদসমূহ

কালের নতুন সংবাদ- Copyright Protected 2022© All rights reserved |
Site Customized By NewsTech.Com

প্রযুক্তি সহায়তায় BTMAXHOST